সুধীর সাহা

সুধীর সাহা, যিনি অধিক পরিচিত মেজর সুধীর সাহা নামে, ১৯৫৭ সালের ৩০ এপ্রিল বাংলাদেশের ঢাকা জেলায় জন্ম গ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএল.বি (অনার্স) এবং এলএল.এম শেষ করে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্যরূপে ওকালতি পেশায় নাম লেখান। তারপর একসময় কালো কোট গায়ে দাঁড়িয়ে যান ঢাকা জজ কোর্টের আদালত চত্বরে।

কাউকে না জানিয়ে একদিন যেমন তিনি বিয়েটা করেছিলেন, ঠিক কাউকে না জানিয়ে একদিন সামরিক ও বেসামরিক উভয় চাকরিতেই আবেদন করে বসেন। চুড়ান্ত পরীক্ষা শেষে দু’জায়গাতেই সুযোগ পেয়ে যান তিনি। বেসামরিক সরকারি চাকরি- ম্যাজিষ্ট্রেটের পদ আর সামরিক চাকরি- সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট হিসাবে জাজ অ্যাডভোকেটের চাকরি।

১৯৯৩ সালে তিনি স্বপরিবারে চলে আসেন সুদূর কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাস করতে।

সুধীর সাহা লেখালেখি নিয়েও ব্যস্ত থাকেন। ঢাকা থেকে প্রকাশিত উল্লেখযোগ্য দৈনিক প্রত্রিকায় তার লেখার অনেকটাই রাজনীতি এবং সমাজ সচেতনমূলক প্রবন্ধ। তার উল্লেখযোগ্য ২৩ টি বই প্রকাশিত হয়েছে ইতিমধ্যে। সেই ১৯৯১ সালে তার প্রথম বই প্রকাশিত হয় বাংলা একাডেমি থেকে।

তারপর একে একে আরও ২২ টি বই প্রকাশিত হয়। বইগুলোর নাম, বিবরণ এবং প্রকাশক ও প্রকাশের সময় নিম্নরূপ:

নংবইয়ের নামবিবরণপ্রকাশক ও প্রকাশের সময়
মাদকদ্রব্য, সমাজ ও আইনপ্রবন্ধবাংলা একাডেমি (১৯৯১)
বিপন্ন ভালবাসাউপন্যাসমুক্তধারা (১৯৯৫)
ঠিকানানাটকঅমিয় ধারা (২০১৬) ২য় সংস্করণ
একটি জীবন ও আমরাছোট গল্পঅমিয় ধারা (২০১৬) ২য় সংস্করণ
নির্বাচিত কলাম (১ম খন্ড)প্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০১৬) ২য় সংস্করণ
এলোমেলো চিন্তা-ভাবনাপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০১৬) ২য় সংস্করণ
নির্বাচিত কলাম (দ্বিতীয় খন্ড)প্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০১৬) ২য় সংস্করণ
বাংলাদেশ : এগিয়ে যাওয়ার এখনই সময়প্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০১৭)
নির্বাচিত কলাম (তৃতীয় খন্ড)প্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০১৭)
১০অবাসযোগ্য পৃথিবী কত দূরেপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০১৯)
১১রাজনীতি এবং …প্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০১৯)
১২চেতনাই বাঁচিয়ে রাখবে বাঙালি সংস্কৃতিপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২০)
১৩শ্রেষ্ঠ প্রবন্ধপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২০)
১৪বিশ্ব সভ্যতার ইতিহাসগবেষণাধর্মীঅমিয় ধারা (২০২০)
১৫World History of Civilizationগবেষণাধর্মীঅমিয় ধারা (২০২০)
১৬Investment Migrationগবেষণাধর্মীঅমিয় ধারা (২০২০)
১৭How Far Uninhabitable Worldপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২০)
১৮পৃথিবীর সেরা ধনীদের জীবনকাহিনীগবেষণাধর্মীঅমিয় ধারা (২০২১)
১৯ধর্ম উত্থানের ইতিহাসগবেষণাধর্মীঅমিয় ধারা (২০২১)
২০প্রবন্ধমালাপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২১)
২১অনন্ত মুখের ঝুলন্ত শিকারপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২২)
২২সবার আগে ইনসানিয়াৎপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২২)
২৩গল্প নয়, সত্যিপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২২)
২৪ভুলতে পারি না সেই জেনোসাইডপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২৩)
২৫আমরা-ওরা’-র বিভাজনপ্রবন্ধঅমিয় ধারা (২০২৩)

মেজর (অব.) সুধীর সাহা এবং তার প্রতিষ্ঠান ‘আইএলসিবি’ কিংবা ‘কল্যাণী ফাউন্ডেশন’ আজ বাংলাদেশে শুধু একজন নাম নয় বরং তার চেয়েও অনেক বেশি। ‘ইছামতি নদী বাঁচাও আন্দোলন’ করতে গিয়ে তিনি পরিবেশ রক্ষার যুদ্ধে একটি সৈনিকের ভূমিকায় অবতীর্ণ। অন্যদিকে, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ইমিগ্রেশন নিয়ে দীর্ঘ সময় কাজ করার ফলে তিনি আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও একটি সুপরিচিত নাম। তার দক্ষতা, সততা তাকে সীমাহীন আকাশের অসীম তারার বুকে জ্বলজ্বল করে বেঁচে থাকার প্রেরণা জুগিয়েছে। গর্ব করার মতো প্রথিতযশা দুই কন্যার বাবা সুধীর সাহা তার স্ত্রীর জন্যও গর্বিত। স্ত্রী তার পাশে থেকে তাকে উৎসাহ জুগিয়ে চলেছেন অবিরামভাবে। তিনি তার ব্যবসার পাশে আছেন, তার লেখার সহায়তায় আছেন, তিনি সর্বত্র ছায়ার মতো থেকে স্বামীকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে সমাজ বিজ্ঞানে মাস্টার্স করলেও আজ সফল ব্যবসায়ী স্বামীর পাশে তিনিও একজন সফল ব্যবসায়ী হিসাবে নিজেকে তুলে ধরেছেন।

একটি চমৎকার পরিবারের মাঝে দাঁড়িয়ে মেজর (অব.) সুধীর সাহা তার স্বভাবসুলভ প্রতিভা ছড়িয়ে বিমোহিত করেছেন বাংলাদেশ ও কানাডার বাঙালি সমাজকে। কালক্রমে সুধীর সাহা নামটি এখন আর শুধু একটি নামই নয়, একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। লেখক, গবেষক, ব্যবসায়ী, ইমিগ্রেশন আইন বিশেষজ্ঞ, সমাজ সেবক অনেকগুলো বিশেষণেরই অধিকারী এই প্রথিতযশা ব্যক্তিটি। তবে তার সবচেয়ে বড় পরিচয় সম্ভবত তিনি একজন সাদা মনের মানুষ। তিনি সমাজকে ভালোবাসেন, মানুষকে ভালোবাসেন, প্রকৃতিকে ভালোবাসেন। এখানেই বুঝি তার জীবনের সবচেয়ে বড় পরিচয়টি লুকিয়ে আছে। তৃণমূল থেকে আসা, ইছামতি নদীর পাড়ের শিকারীপাড়া গ্রামের ‘সুধীর’ ভবিষ্যতে আর কত ঔজ্জ্বল্য ছড়ায় তা দেখার জন্য এলাকাবাসী ও পরিচিতজনেরা গভীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে।